ইকবালকে খুঁজে বের করার সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ইকবালকে খুঁজে বের করার সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
সংগৃহীত ছবি

কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন রাখা ব্যক্তি হিসেবে চিহ্নিত হওয়া ইকবাল হোসেন মোবাইল ব্যবহার করছে না জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ‘তাকে খুঁজে বের করার সর্বোচ্চ চেষ্টা নিয়েছি।’

বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) সচিবালয়ে বলপ্রয়োগে বাস্তুচ্যুত মিয়ানমারের নাগরিকদের (রোহিঙ্গা) সমন্বয়, ব্যবস্থাপনা ও আইনশৃঙ্খলা সম্পর্কিত জাতীয় কমিটির সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা জানান।


ইকবাল হোসেনকে চিহ্নিত করা হয়েছে। কখন নাগাদ তাকে জনসম্মুখে হাজির করা হবে, এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘কুমিল্লার যে টার্গেট...আমি আগেই বলেছি আমরা সুনিশ্চিত, যে লোকটি করেছে, আমাদের ক্যামেরার মাধ্যমে তাকে আমরা চিহ্নিত করেছি। যে মাজারের সঙ্গে মসজিদ, ওটা খুব প্রসিদ্ধ মসজিদ। দেখা গেছে সেই মসজিদে রাত ৩টার দিকে সে গেছে। একবার নয় তিনবার গেছে।’



তিনি বলেন, ‘সেখানে অবস্থান করে মসজিদের দুজন খাদেম ছিলেন, তাদের সঙ্গে কথাবার্তা বলেছে। আমাদের অভিজ্ঞ টিম দীর্ঘক্ষণ এটা অ্যানালাইসিস করে সুনিশ্চিত হয়েছে। এই ব্যক্তিটি (ইকবাল) মসজিদ থেকে কোরআন এনে রেখেছে, সেটা তারই কর্ম। রেখে সে মূর্তির গদাটি কাঁধে করে নিয়ে এসেছেন, সেই দৃশ্যটিও আপনারা দেখেছেন।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, ‘এই লোকটি (ইকবাল) কার প্ররোচনায় কার নির্দেশে, কীভাবে এই কর্মটি কররো... সেই কাজটি পরিকল্পনা মাফিক করলো। দুই তিনবার যাওয়া আসার মধ্যে সে এই কর্মটি শেষ করেছে। কাজেই এটি নির্দেশিত হয়ে কিংবা কারও প্ররোচনা ছাড়া করেছে বলে আমরা এখনও মনে করি না। তাকে ধরতে পারলে বাকি সব উদ্ধার করতে পারবো বলে বিশ্বাস করি।’

আসাদুজ্জামান খান বলেন, ‘সে (ইকবাল) কোনো মোবাইল ব্যবহার করছে না। যারা তাকে পাঠিয়েছিল তারাও হয়তো... এখনও বলতে পারছি না...লুকিয়ে রাখতে পারেন। তাকে খুঁজে বের করার সর্বোচ্চ চেষ্টা নিয়েছি।’


পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়েছে কুমিল্লার ঘটনার মূল হোতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে, এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘গ্রেফতারের কাজটি তো আমরা করছি। পুলিশ করছে। ভারপ্রাপ্ত পুলিশ প্রধানও এখানে আছেন। আমরা যেটুকু বলেছি, সেটুকুই আমরা জানি। এরপর যদি কেউ কিছু বলে থাকে হয়তো তিনি আরও তথ্য জেনে বলেছেন। কিন্তু আমাদের কাছে এর বেশি তথ্য নেই।’

রামু, নাসিরনগরসহ অন্যান্য স্থানে হিন্দুদের ঘরবাড়িতে হামলার ঘটনায় বিচার না হওয়ায় এমন ঘটনা ঘটছে বলে দাবি করছেন সমালোচকরা, এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বিচার বিভাগ সম্পূর্ণ স্বাধীন। রামুর তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়া হয়েছে, সেখানে সাক্ষী যাচ্ছে না। কী করবেন আপনি? নাসিরনগরে একটি মামলা বাকি রয়েছে, সবগুলোর চার্জশিট দেওয়া হয়েছে।

সেখানেও সাক্ষীরা যাচ্ছে না। ভোলায় দু-পক্ষই মিলেমিশে একটা সেটেলমেন্ট হয়েছে, সেখানে আর অসুবিধা হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয় নাসিরনগরে যেটুকু বাকি আছে, সেটুকুও শেষ হবে। আরেকটা ইনফরমেশন দেই। যাদের সাক্ষী করা হয়েছে, পুলিশ আমাদের এসে রিপোর্ট করে গেছে, সাক্ষীরা এখন সাক্ষ্য দিতে যায় না। সাক্ষীরা অনীহা প্রকাশ করছে। সে জন্য বিচার হয়তো দেরি হতে পারে। সেটাও একটা কারণ হতে পারে। বিচার বিভাগ সম্পূর্ণ স্বাধীন, তারা তাদের জুরিসডিকশনে চলে।’

কোথাও এখন আতঙ্ক নেই দাবি করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘এগুলো বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটিয়েছে। উদ্দেশ্যমূলকভাবে ঘটিয়েছে। উদ্দেশ্যমূলকভাবে ঘটনার পর আকস্মিকভাবে যেগুলো হয়েছে সেগুলোই হয়েছে। এরপর এখন পরিবেশ সম্পূর্ণ শান্ত। সবাই যার যার কাজে চলে গেছে।’

সভায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান, মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউসসহ কমিটির অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।