আপনার NID card দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন হয়েছে চেক করুন সহজেই | নিবন্ধিত সিমের তালিকা ২০২২

আপনার National ID Card দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে? সবগুলো সিম বৈধ তো? আপনার NID ব্যবহার করে অন্য কেউ সিম নিবন্ধন করেছেন কি? কিভাবে চেক করবেন তা জানার জন্য পুরো পোস্টটি প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত পড়তে হবে।

আপনার NID card দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন হয়েছে চেক করুন সহজেই | নিবন্ধিত সিমের তালিকা ২০২২

আপনার National ID Card দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে? সবগুলো সিম বৈধ তো? আপনার NID ব্যবহার করে অন্য কেউ সিম নিবন্ধন করেছেন কি? কিভাবে চেক করবেন তা জানার জন্য পুরো পোস্টটি প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত পড়তে হবে।



সিম নিবন্ধন:

একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে নিবন্ধিত সিম ব্যবহার করা আপনার আমার সবার কর্তব্য। সেইসাথে প্রাপ্তবয়স্ক তথা ১৮ বছরের উর্ধে সকলের NID card থাকতে হবে। আপনারা হয়তো জানেন, বর্তমানে National ID Card দ্বারা নিবন্ধন করা ছাড়া কোনো সিম কেনা বা ব্যবহার করা যায় না। সরকারের নতুন আইন অনুযায়ী যে কোনো মোবাইল কোম্পানি সিম বিক্রয় করার আগে অবশ্যই তা National ID card দ্বারা নিবন্ধন করাতে হবে।



কেন করাবেন সিম নিবন্ধন?



অনেকের মনেই এই প্রশ্নটা আসে যে, সিম নিবন্ধন কেন করবো। NID দিয়ে সিম নিবন্ধন করলে কি হবে? আসলে এই NID দিয়ে সিম নিবন্ধনের আইন করার অনেকগুলো উদ্দেশ্য আছে। এই আইনটি করা হয়েছে নাগরিকদের নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখেই। অনেকগুলো উদ্দেশ্য আর তার মধ্যে একটি হলো Identity varify করা। অর্থাৎ ব্যক্তি বা নাগরিকের পরিচয় সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া। বিষয়টি একটু খুলেই বলি।

কিভাবে ওয়েবসাইট গুগলে Fast Rank করব? How to Rank my website #1 in Google Tips 2022

সেরা ফ্রি VPN 2022 সালে পরীক্ষা করেছি এবং র‌্যাঙ্ক করেছি



আপনার NID দিয়ে আপনার ব্যবহৃত সিম নিবন্ধন করা থাকলে তাতে আপনার সত্ত্বাধিকার থাকে। তার মানে আপনিই সিমের মালিক। সিম পুনরায় তুলতে গেলেও ফিঙ্গারপ্রিন্ট রিডার মেশিনে যার এনআইডি ব্যবহার করা হয়েছে সিম রেজিস্ট্রেশনের সময় তার আঙ্গুলের ছাপ দিতে হয়। তাছাড়া আপনি সিম তুলতে পারবেন না। এখন সিম হারিয়ে গেলে বা চুরি হলে NID ইনফরমেশন থেকে তা চিহ্নিত করে খুঁজে বের করা যাবে।



তাছাড়া তথ্য- প্রযুক্তি সংক্রান্ত অপরাধ ইদানিং বেড়েছে সেইক্ষেত্রেও পুলিশ অপরাধীকে NID দ্বারা নিবন্ধিত সিমের মাধ্যমে অপরাধীর নাম, ঠিকানা খুঁজে বের করার একটি সুযোগ তৈরি হয়েছে। এমনকি সিমের দ্বারা ইন্টারনেট সচল করা হলেও আইপি এড্রেসের সাহায্যে অপরাধীকে খুঁজে বের করা যায়। তাই আপনার ব্যবহৃত সিমটি NID দ্বারা রেজিস্ট্রেশন করা অতীব জরুরী।



একটি NID দিয়ে সর্বোচ্চ কয়টি সিম নিবন্ধন করতে পারবো?

আপনারা অনেকেই হয়তো জানেন না যে, নতুন আইন অনুযায়ী নিবন্ধিত সিমের সংখ্যাও নির্দিষ্ট করে দেয়া হয়েছে। একটি NID ব্যবহার করে আপনি সর্বোচ্চ ১৫ টি সিম নিবন্ধন করতে পারবেন। নাহ। কোনো অবস্থাতেই এর চেয়ে বেশি সংখ্যক সিম একটি NID card ব্যবহার করে নিবন্ধন করা যাবে না। তবে কোনো সিমের পূর্বের রেজিস্ট্রেশন বাতিল হলে তখন নতুন একটি সিমএনআইডি ব্যবহার করে সচল করা যাবে।



কেন চেক করবো সিমের সংখ্যা?

আমি তো জানি যে, আমার NID card দিয়ে আমি কয়টা সিম রেজিস্ট্রেশন করেছি। তাহলে আবার নতুন করে চেক করতে হবে কেন? কারণ আইন হবার পরেও অনেক অসাধু লোকজন অন্যের NID ব্যবহার করে সিম নিবন্ধন করাচ্ছে। এমনকি বিভিন্ন সিম কোম্পানির এজেন্টরা এর সাথে জড়িত।



এখন কোনো অপরাধ যদি সেই সিম ব্যবহার করে করা হয়, যা ভুয়া হলেও আপনার নাম বা আপনার NID ব্যবহার করে নিবন্ধিত হয়েছে তখন নিবন্ধন আপনার নামে হওয়াতে আপনি ফেঁসে যেতে পারেন। এরকম ঘটনা আগেও ঘটেছে। এই সংক্রান্ত বেশ কিছু জালিয়াতির মামলাও হয়েছে। তাই ঝুঁকি নিবেন কেন?



কিছুটা সময় ব্যয় করে আপনার মোবাইলের মাধ্যমেই জেনে নিন আপনার NID দিয়ে কয়টি সিম নিবন্ধন করা হয়েছে। যদি সন্দেহজনক কিছু দেখেন তাহলে তা সিম কোম্পানি এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবহিত করুন। তারা প্রয়োজন অনুযায়ী যথাযথ ব্যবস্থা নেবে।



কিভাবে দেখবো আমার NID দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে?

এবারে জেনে নেয়া যাক, আপনার NID দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে তা কিভাবে দেখবেন। আসুন জেনে নেই মোবাইলের মাধ্যমে কিভাবে জানবেন কয়টি SIM আপনার এনআইডি দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে।



আরও পড়ুনঃ

কোমর ও পিঠের ব্যথা দূর করার সহজ উপায় । কোমর - পিঠ ব্যথায় করণীয় কি ?

পায়ের গন্ধ দূর করার সহজ উপায় | শীতকালে পায়ে মোজা পরলেই দুর্গন্ধ হয় ?

আমার এনআইডি দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন হয়েছে?



আপনার সচল সিম থেকে *16001# লিখে ডায়াল করুন। এরপর আপনাকে বলা হবে Please enter last 4 digit of your NID card বা National ID Card

আপনার এনআইডি কার্ডের শেষের চার ডিজিট জানতে চাওয়া হবে। সেটা ইনপুট দিলেই আপনি কিছুক্ষণের মধ্যেই রিপ্লাই পেয়ে যাবেন।



আপনি কিছুক্ষণের মধ্যেই মেসেজে রিপ্লাই পেয়ে যাবেন। কাস্টমার কেয়ার থেকে আপনাকে কয়টি নম্বর Registration করা হয়েছে তার বিস্তারিত জানিয়ে দেবে। তবে তারা পুরো NID number বা পুরো ফোন নম্বর উল্লেখ করবে না। ওটা নিরাপত্তার জন্যেই * চিহ্ন দিয়ে লেখা থাকে। যাতে অন্য কারোর কাছে আপনার তথ্য বা ফোন নম্বর পাচার না হয়।



এসএমএসের মাধ্যমে কয়টি SIM আপনার NID দিয়ে Registration করা হয়েছে জানার জন্য *১৬০০১ # এই নম্বরে মেসেজ পাঠাবেন। একবারে উত্তর পাবার জন্য আপনি উপরে উল্লেখিত নম্বর আর আপনার NID এর শেষ চার ডিজিট * এবং # এর মাধ্যমে পাঠাতে পারবেন। তখন একবারেই আপনি এসএমএস এর উত্তর পেয়ে যাবেন। সাধারণত মোবাইল নম্বরের মাঝের পাঁচটি ডিজিট গোপন রাখা হয় সিকিউরিটির অংশ হিসেবে।



NID দিয়ে কয়টি সিম Registration হয়েছে তা জানার অন্যান্য পদ্ধতি:



শুধুমাত্র উপরে উল্লেখিত পদ্ধতি ছাড়াও আপনি মোবাইল সিম কোম্পানির মাধ্যমেও প্রয়োজনীয় তথ্য জানতে পারবেন। আসুন দেখে নেই কিভাবে SIM কোম্পানি থেকে এই সম্পর্কিত তথ্য জানতে পারবেন।



Grameenphone:

আপনার NID দিয়ে কয়টি Grameen Number রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে জানার জন্য info লিখে 4949 নম্বরে Send করুন। অথবা আরেকটি পদ্ধতি আছে। REG লিখে আপনার NID নম্বর দিয়ে 4949 নম্বরে পাঠাতে পারেন। তারা আপনাকে রিপ্লাই মেসেজের মাধ্যমে বিস্তারিত তথ্য জানিয়ে দেবে।



Grameen SIM এর পর আমরা কথা বলবো Banglalink SIM নিয়ে।



Banglalink:

আপনার NID দিয়ে কয়টি Banglalink SIM রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে জানার জন্য *16001#ডায়াল করতে হবে। তারা কেবল Banglalink যতগুলো নম্বর নিবন্ধিত হয়েছে সেই সংক্রান্ত তথ্য আপনাকে দেখাবে।



Robi:

আপনার NID দিয়ে কয়টি Robi সিম Registration করা হয়েছে জানার জন্য একইভাবে *16001# ডায়াল করতে হবে। এই কোম্পানিও আপনাকে কেবল রেজিস্টার্ড রবি সিম সম্পর্কে তথ্য দিতে পারবে।



Teletalk:

টেলিটক সিমের NID দ্বারা Registration এর ক্ষেত্রে কয়টি সিম নিবন্ধন করা হয়েছে জানার জন্য 1600 নম্বরে মেসেজ পাঠাতে হবে। তাহলেই মেসেজের উত্তরে আপনি নিবন্ধিত টেলিটক নম্বরসমূহ আর বিস্তারিত তথ্য জানতে পারবেন।



Airtel:



আপনার NID দিয়ে কয়টি এয়ারটেল কোম্পানির সিম রেজিস্ট্রেশন হয়েছে জানার জন্য 16001 নম্বরে ডায়াল করতে হবে। তারাও আপনাকে একইভাবে রিপ্লাই মেসেজের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় তথ্য জানিয়ে দেবে।



এখানে একটি বিষয় লক্ষণীয় : আপনি সিম কোম্পানি হতে কেবলমাত্র নির্ধারিত অর্থাৎ তাদের নিবন্ধিত সিমেরই খবর জানতে পারবেন।



পাসপোর্ট অথবা লাইসেন্স দ্বারা Registration করা সিমের ক্ষেত্রে কি করবেন?

এখন NID ছাড়াও যদি আপনার পাসপোর্ট বা লাইসেন্স দ্বারা মোবাইল SIM Registration করা থাকে তখন কি করবেন? আপনার NID এর পরিবর্তে Passport Number বা লাইসেন্স নম্বরের শেষ চার ডিজিট *16001# এই নম্বরে Send করতে হবে।



এবার কথা বলবো হারানো সিম কার নামে Registration করা হয়েছে সেটা কিভাবে জানবেন।



হারানো সিম Registration প্রসঙ্গে:



আপনার কোনো SIM যদি হারিয়ে যায় বা নষ্ট হয়ে যায় তাহলে নতুন করে SIM তুলতে হবে। এইক্ষেত্রে মোবাইল চুরি হয়ে গেলেও সিম বন্ধ করার প্রয়োজন হলে NID সাথে নিয়ে যেতে হবে।



এখন কার NID দিয়ে আপনার হারানো সিম রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে জানতে আগে উল্লেখিত পদ্ধতি অবলম্বন করুন। তাতেও যদি কাজ না হয়, মানে কার NID দিয়ে সিম রেজিস্ট্রেশন করেছেন সেটা ভুলে গেলে হেল্পলাইন বা কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করুন। তারা আপনাকে কিছুটা hint দেবে মনে করার জন্য যেমন- এনআইডি এর লাস্ট ডিজিট বা ব্যক্তির নাম। তবে তার আগে আপনাকে সঠিক তথ্য দিয়ে বলতে হবে বা বোঝাতে হবে যে, সিমের মালিক আপনি।



NID card এর রেজিস্ট্রেশন বাতিল করতে হলে করণীয়



এখন আপনি যদি কোনো ভেরিফাইড সিমের রেজিস্ট্রেশন বাতিল করতে চান তখন কি করবেন? প্রথমে National ID Card এর নম্বর সহযোগে উপরে উল্লেখিত পদ্ধতি অনুসারে দেখে নেবেন আপনার NID দ্বারা কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন হয়েছে। এরপর সেখান থেকে কোন নম্বরটির রেজিস্ট্রেশন বাতিল করতে চান সেটা ঠিক করবেন।



তারপর সিম কোম্পানিতে ফোন দিয়ে এজেন্টকে আপনার নাম, এনআইডি নম্বর আর লাস্ট ট্রানজেকশনের ডিটেইলস দিয়ে ভেরিফাই করবেন এবং আপনি বলবেন যে, আপনি সিমটি বাতিল করবেন। সেইসাথে SIM বাতিলের কারণ জানতে চাইতে পারে এজেন্ট। তখন দুই থেকে একটি কারণ দেখাতে হবে। যেমন: আপনি নতুন সিম কিনেছেন বা পুরনো কোম্পানি বদল করে অন্য কোনো কোম্পানির সিম কিনবেন ইত্যাদি। সব ঠিকঠাক থাকলে এজেন্ট আপনার সিম রেজিস্ট্রেশন বাতিল করে দেবে আর আপনার ফোনে আপনি একটি কনফারমেশন মেসেজ পাবেন।



SIM বাতিল এবং উইথড্র করা:



বর্তমান নিয়ম অনুযায়ী আপনি NID দিয়ে যে কোনো মোবাইল কোম্পানির সিম উইথড্র করতে পারবেন। আবার চাইলে Registration বাতিলও করতে পারবেন। তবে এই পদ্ধতিতে আপনাকে কয়েক ধাপে ভেরিফিকেশনের মুখোমুখি হতে হবে। ধরুন, কেউ মারা গেছে। তার NID যাতে অন্য কেউ ব্যবহার করে জালিয়াতি করতে না পারে সেজন্য প্রয়োজনে তার নামে নিবন্ধিত সিম তার NID এর সাহায্যে বন্ধ বা বাতিল করে দিতে হবে।


Blogger VS WordPress, কোনটি সেরা ২০২২ । Google Blogger নাকি WordPress, কোনটি আপনার জন্য উপযুক্ত

সতর্কতা:



কিছু সতর্কতা আপনাকেও অবলম্বন করতে হবে।



১| NID এবং মোবাইল নম্বর সম্বলিত তথ্য বুঝে শুনে অন্যদের জানাবেন।

২| মাঝে মাঝে মোবাইলের মাধ্যমে নিবন্ধিত সিমের তালিকা চেক করবেন।

৩| অপরিচিত কাউকে NID number দেবেন না।

৪| কোনো অপরিচিত নম্বর আপনার নামে নিবন্ধন করা দেখলে সাথে সাথে তা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবহিত করুন।

আমি মনে করি, NID দিয়ে মোবাইল সিম রেজিস্ট্রেশনের নিয়ম চালু হওয়াতে আজকাল লোকেশন ট্র্র্যাক করা আর ব্যবহারকারীর নাম, ঠিকানা খুঁজে বের করা অনেক সহজ হয়ে গিয়েছে। যার কারণে অপরাধীরা সহজে ধরা পড়ছে। এছাড়া মোবাইল সিমের ব্যবহার আরও নিরাপদ হয়েছে।তাই মাঝে মাঝেই চেক করবেন আপনার NID দিয়ে অজানা কারোর নম্বর রেজিস্ট্রার্ড হয়েছে কিনা। আর সন্দেহজনক কিছু দেখলেই দেরি না করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবহিত করতে হবে।



আজ এই পর্যন্তই। সবাই ভালো থাকবেন। আশা করছি পোস্টটি আপনাদের কাজে আসবে। পোস্টটি পড়ার সাথে সাথেই আপনি চাইলে নিয়ম দেখে আপনার NID দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে তা দেখে নিতে পারেন।

 @বিডি বাংলার নিউজ